Skip navigation


In the beginning, I sit alone in our classroom.

Like every new transfer student, I am a little nervous. However, my many experiences of transferring schools has hardened me to the feeling of uneasiness at knowing that I was soon to be the topic of local gossip.

Like every new transfer student, I had arrived at school much earlier than the others. I perch myself with a certain level of poise because of no reason in particular. You arrive a few minutes into my extended perching.

You walk to back of the empty classroom and relieve yourself of your baggage. As you turn around, you note my presence. You proceed to perch- and contemplate this sudden intruder- on your chair with your left hand on your face: the index on the philtrum, the thumb on your left cheek (I later came to recognize this as the spot where you dimple when you smile) and the rest of the fingers on your chin. Following this extended unanticipated contemplation, you hurry out of the classroom. I believe that you had taken on the role of the town-crier – to let the news of this new addition be known to the veteran schoolyard soldiers.

I should have realised that meeting you before the rest was an omen of sorts because afew months later you fall in love with me.

As the nature of these things are in middle school society, your affection became known to the rest of the boys. They openly tease you in front of me and sing love songs celebrating our anticipated union during those opportune moments when the teacher leaves the class to bring something he had forgotten (yet oh so necessary for imparting knowledge on impressionable teenagers!).

But my life isn’t (yet) all taking place at school! When visiting my uncle’s family, I tell a particular cousin of mine that I like you. I don’t really tell her your name and we laugh around for a bit about my young, crazy crush.

But what is this? I invite you to my birthday party and you eye my cousin! Is it possible that I could have been wrong in perceiving your feelings? Was it all my wishful thinking? I return home that evening and cry into my pillow. None is made privy of my misery, yet my insightful mother notes my state of mind and advises me to snap out of acting like my father-in-law had died! What comedy!

You fall in love with my cousin. You visit her regularly. You bring your uncle along on one of these visits to gain his approval. I brace my heart and decide that it must have all been in my head. As is the nature of young love, it ends. This takes the form of my cousin deciding that you are grossly disgusting- for what reason, I will never know.

Two years pass. You had long moved away from the school where we met- where I was now reigning as something of a sociable queen nerd. After some pleasantries are exchanged, one of which includes you teasing me about possible romantic exchanges between my older and handsome guitar instructor, you ask me how I feel about you.

I am shocked. Yet I stoically let you know that I will not think of you in a romantic way because you are my friend. You seem to confirm something to yourself and we eventually end the call on a friendly note.

To this day, I do not know what incited you to do the above mentioned act. Yet-

I thank you for tacitly letting me know that I am lovable. That my opinion of you mattered- even if only for a fleeting moment.

That your love for me was not-after all-in my head.

Advertisements

I have been afflicted with a disease called love for this

supersensationalmegalusciousselfproclaimedalienkingofuniverse

widely known as Kim Hyun Joong. Hence I have subscribed myself to every facebook group devoted to him and scour youtube with excessive enthusiasm for new videos. I chanced across a new ad for faceshop, one of his endorsements and came across yet another luscious photo. Hence I made a meme out of it 2 days ago.

Image

I maintain that I am awesome.

That being said, I don’t own the photo in the middle. It is property of faceshop or whoever thought that it would be a great idea to streak eye-shadow across hyunnies face. The text associated is mine. Don’t you dare claim it as yours.


If I don’t face this now

I’ll regret all through my life

So, for you, I’ll go

Should this storm break my wings of flight

I’ll race against time and let you know

I won’t seek release from this vow.

There maybe rocking waves in the ocean

Fanged beasts among the trees

In my journey fear remains given

Yet from these I will never flee

Remember, to this call I’ve risen

Act, I will, till my love be proven.

Should in your eyes I see doubt or fear

Let me erase them once and forever

I will flood them with hope

And we’ll break free from here

Though this day knows not tomorrow,

This is all have to give

For us we have this moment

Forever this, we’ll keep.

So, long, till you call again, brother

As, you, there will never be another.

Nov. 03, 2010 at 2:00 am


I’ve been under a One Piece fever lately…. Which led me to finding a few inconsistencies in the anime (haven’t been following the manga). Buggy the clown was irritating me in particular.

Bara bara no mi: Facts should stay facts. During their first meeting, Buggy the clown “bara bara’d” his body part, three of which Nami stole, tied up and Luffy sent the “now chibi” Buggy flying. They were parts of his torso/abdomen. In the Impel Down arc, we find that buggy’s body could remain within a certain radius of his other parts and he could technically fly when luffy was carrying his feet for him.

Here’s the problem: the first time we see buggy, if parts of his body could be sent flying away by a gomu gomu no bazooka, the rest should have follow suit (as seen when they fall from the red hell level).

nani kore, Oda sensei????

**** post script and kifujin comment****

Sanji and Zoro is the most feverish couple in one piece (I love both SxZ and ZxS. Both are equally yummmmm). I’m wondering whether Zoro shaves both his legs AND face. Sanji seems to have enough hair on this chins and legs … I would NOT know about anywhere else…

*context for hair* –> The idea of Zoro’s worldly hair came while wondering about the gende of pubic hair in french.


Calm comes in the strangest ways. Like when you expect a storm.

I haven’t been able to study much for the last few days. Five days it has been, to be precise, since I have done any meaningful school work. I have a paper due on the 19th which requires me to read a recent publication in immunology and paraphrase the work “but not paraphrasing what the authors wrote”. Figure.

So while fidgeting around with my conscience and unease to somehow dupe them into allowing this paraphrasing of another person’s work and securing thirty percent of my course grade for it and all the while miserably failing at the attempt, I decided to add a grandfather for the heroine in my first big work of literature. I am not sure what to call this mammoth “story” that I plan to write yet, but I have named the word file “wishes” for no precise reason. I did write in a few dialogues between the heroines grandfather who is an ex- King: should such a thing ever exist. It is a fantasy novel, you see.

I “searched” for the word file to put in the grandfather’s character. There were a lot of things that turned up. The Elephant Vanishes was one of them.

“Very interesting. I do not remember having such a thing in my laptop.” I whispered to myself and thence I double clicked.

There was a preface by an unnamed person. Then there was a story called The Second Bakery Attack. Then I went on to read Lederhosen and finally Barn Burning. I decided to skip quite a few in the middle since my mother was supervising the progress of this “strictly paraphrasing prohibited” paraphrasing work.

Murakami’s three somewhat settlingly-unsettling short stories have restored the calm in me that I needed to be able to start this excruciating, abhorrent, yet required process. I will now proceed.

ありがとう, 村上 せんせい.


লাঞ্চের পর আবারও আমাদের ডাল্টন স্যারের সাথে ক্লাস ছিল।এবার ইতিহাস। আমরা দ্বিতীয় বিশ্ব-যুদ্ধ নিয়ে পড়ছিলাম। এতে আমার খুব বেশি আগ্রহ ছিল না কিন্তু স্টীভ খুবই পছন্দ করতো। যুদ্ধ-বিগ্রহ এবং মারামারি সংক্রান্ত সব কিছুতেই স্টীভের প্রচন্ডরকম আগ্রহ ছিল। ও প্রায়ই বলত যে বড় হয়ে ও ভাড়াটে সৈনিক হবে, টাকার জন্য লড়াই করবে। আসলেই ও ওটা হতে চাইত!

ইতিহাসের পর আমাদের অংক ক্লাস ছিল, এবং অবিশ্বাস্য ভাবে তৃতীয়বারের মত সেটাও পড়াতে এলেন ডাল্টন স্যার! আমাদের অঙ্কের শিক্ষক অসুস্থ হয়ে স্কুলে আসতে পারছিলেন না, সুতরাং অন্যান্য শিক্ষকরা যে যখন পারতেন, উনার ক্লাসগুলো ভাগ করে নিয়ে নিতেন।

স্টীভ তো খুশীতে স্বর্গের সাত-তলায়! পর পর তিনটা ক্লাস তার প্রিয় শিক্ষকের! এই প্রথম ডাল্টন স্যার আমাদের অংক ক্লাস নিলেন। স্টীভের ‘ভাব’ আর দেখে কে! আমরা বইয়ের কোথায় আছি, কঠিন অংকগুলো কি ভাবে করতে হবে, স্টীভ এগুলো স্যারকে এমন ভাবে দেখিয়ে দিচ্ছিল যেন কোন বাচ্চা ছেলেকে শেক্ষাচ্ছে। কিন্তু মনে হল স্যার তাতে কিছু মনে করেন নি। তিনি স্টীভকে ভাল ভাবেই বুঝতেন, আর এ ও বুঝতেন ওকে কি ভাবে বশে রাখা যায়।

সাধারনত ডাল্টন স্যার ক্লাসে বেশ কড়া হলেও মজা করে পড়াতেন এবং আমরা সব সময়ই নতুন কিছু না কিছু শিখতাম। কিন্তু তিনি অংকে ভাল ছিলেন না। আমাদের অংক বোঝানোর জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন কিন্তু আমরা বুঝতে পারছিলাম যে সমস্ত অংক উনার মাথার উপর দিয়ে যাচ্ছে। অংক বইয়ে মুখ গুঁজে তিনি যখন অংক বোঝার চেষ্টা করছেন আর পাশ থেকে স্টীভ উপদেশ দিচ্ছে, তখন আমরা অন্যরা অস্থির হয়ে ফিসফিস করছিলাম এবং পুরোদমে নোট চালাচালি শুরু করে দিলাম।

আমি এলানকে একটি নোট পাঠিয়ে জানতে চাইলাম, ওই রহস্যময় কাগজ সে কোথা থেকে যোগাড় করেছে। প্রথমে কিন্তু ও এ ব্যপারে আমাকে কোন কিছু লিখতে চাইলো না, কিন্তু আমি বারবার নোট পাঠানোতে অগত্যা হার মানল। টমি ওর দুই সীট পরে বসেছিল সুতরাং টমিই প্রথমে কাগজটা পেলো এবং খুলে পড়া শুরু করে দিল। আমি দেখলাম প্রথমে ওর মুখ উজ্জ্বল হয়ে, পরে ধীরে ধীরে মুখ পুরো হা হয়ে গেল। তিনবার পড়ার পর ও যখন আমাকে দিল, তখন কারনটা বুঝতে পারলাম।

ওটা ছিল একটি ফ্লায়ার। কোন একটা ভ্রাম্যমান সার্কাস দলের বিজ্ঞাপনী প্রচারপত্র, যেটার সবচেয়ে উপরে একটি নেকড়ে বাঘের মুখের ছবি- বিরাট হা’র ভিতর দা্ঁত, আর তা থেকে লালা ঝরছে। সবচেয়ে নিচে একটি মাকড়শা এবং একটি সাপের ছবি ছিল, এবং ওগুলোও দেখতে ভয়ংকর।

নেকড়ের ঠিক নীচে লাল অক্ষরে বড় বড় লেখাঃ

সার্ক দু ফ্রিক

আর তার ঠিক নীচে ছোট করে লেখা,

শুধু মাত্র এক সপ্তাহের জন্য! সার্ক দু ফ্রিক!

দেখুন:
সিভ এবং সীরসা – প্যাঁচানো জমজ!
সর্প-বালক! নেকড়ে-মানুষ! গার্থা টীথ!
লার্টেন ক্রেপ্সলি এবং তার অভিনব মাকড়শা!
ম্যাডাম অক্টা! আলেকজান্ডার রিবস্! দাড়িওয়ালা মহিলা!
হ্যান্স হ্যান্ডস! রেমাস টুবেলিস-বিশ্বের সবচেয়ে মোটা মানুষ!

আর এই সব লেখার নীচে একটা ঠিকানা দেয়া যেখান থেকে টিকেট কেনা যাবে। প্রদর্শনী স্থানের ঠিকানাও ওখানে দেয়া ছিল। এবং নীচে যেখানে সাপ এবং মাকড়শার ছবি, তার ঠিক উপরে লেখা:

দুর্বল মনের মানুষের জন্য নয়! বিধি নিষেধ প্রযোজ্য!

‘সার্ক দু ফ্রিক?’ আমি বিড় বিড় করে বললাম। সার্ক হল সার্কাসের ফ্রেঞ্চ…ফ্রিকের সার্কাস …এটা কি একটা অস্বাভাবিক মানুষদের প্রদর্শনী? দেখে তো তাই মনে হচ্ছে!

আমি আর একবার ফ্লায়ারটা পড়া শুরু করলাম। সার্কাস খেলোয়ারদের ছবি এবং বনর্নায় বুঁদ হয়ে ছিলাম। সত্যি বলতে কি, এতটাই মগ্ন হয়ে ছিলাম যে ক্লাসে স্যারের উপস্থিতির কথা একেবারেই ভুলে গেছিলাম। আমার তখনই স্যারের কথা মনে পড়লো যখন দেখলাম সমস্ত রুম চুপ। মাথা তুলে তাকিয়ে দেখি ক্লাসে্র একেবারে সামনে স্টীভ একা দাঁড়িয়ে। আমার দিকে তাকিয়ে জিভ বের করে দাঁত কেলিয়ে হাসছে। আর তারপরই আমার ঘাড়ের কাছের লোম দাঁড়িয়ে যেতে আমি ঘাড় ঘুরিয়ে পিছনে তাকিয়ে দেখি স্যার এতক্ষন আমার পিছনে দাঁড়িয়ে চুপ করে ফ্লায়ারটা পড়ছিলেন।

আমার হাত থেকে কাগজটা প্রায় কেড়ে নিতে নিতে বললেন, ‘কি এটা’?

-এটা প্রচারপত্র, স্যার।

-পাইছিস কোথায়? দেখে মনে হচ্ছিল তিনি প্রচন্ড রেগে গিয়েছেন। উনাকে আগে কখনোই এতটা রাগতে দেখিনি।

-কোথায় পাইছিস? তিনি আবারও জিজ্ঞাসা করলেন।

ভয়ে ঠোঁট কামড়ালাম। বুঝতে পারছিলাম না কি উত্তর দেবো। আমি মরে গেলেও এলানের নাম বলব না, আর এটাও জানি এলানও নিজে থেকে কখনোই স্বীকার করবেনা। আমরা, এলানের সবচেয়ে কাছের বন্ধুরা জানি যে এলান কতটা ভীতু। কিন্তু আমার মাথা ভয়ে ঠিকমত কাজ করছিলনা তাই চট করে একটা মোক্ষম মিথ্যা বানাতে পারছিলামনা।

ভাগ্যক্রমে স্টীভ হাল ধরল, ‘স্যার, ওটা আমার’।

স্যার চোখ পিট পিট করে বললেন, ‘তোর’?

-বাস স্ট্যান্ডের কাছে পাইছি স্যার, একটা বুড়া লোক ফেলে দিয়েছিল। কি আছে দেখার জন্য তুলে এনেছি। ক্লাস শেষে এইটা সম্পর্কে আপনাকে জিজ্ঞেস করতে যাচ্ছিলাম।

-ওহ্ তাই!

স্যার খুশী-খুশী ভাব চেপে রাখার চেষ্টা করলেও আমি বেশ বুঝতে পারছিলাম যে তিনি মনে মনে ঠিকই খুশী হয়েছেন।

-তা হলে তো অন্য কথা। জানার ইচ্ছে থাকা ভাল। যা, বস।

স্টীভ বসল আর ডাল্টন স্যার ফ্লায়া্রটাকে একটা থাম্বট্যাক দিয়ে বুলেটিন বোর্ডে গেঁথে রাখলেন।
ফ্লায়ারটার উপর টোকা দিতে দিতে বললেন, ‘অনেক আগে, আসল ফ্রিক প্রদর্শনী হত। ঠগ, লোভী লোকরা বিকলাঙ্গ মানুষদেরকে খাঁচায় ভরে রাখত…’

-স্যার, বিকলাঙ্গ মানুষ মানে কি? কে যেন প্রশ্ন করল।

-যেমন কোনো একজন মানুষ যে দেখতে অন্য আট-দশজন সাধারন মানুষের মত না। যেমন তিন হাত অথবা দুই নাকওয়ালা মানুষ; পা নাই এমন কেউ; খুব খাট বা খুব লম্বা মানুষ। ঠগরা এই সব মানুষদেরকে খাচায় পুরে অন্য সাধারন মানুষদেরকে দেখাতো এবং বলতো ওরা নাকি ‘ফ্রিক’, অর্থাৎ উদ্ভট। অথচ এদের এই শারীরিক ত্রুটি বাদে সবই আমাদের মত। ঠগরা এই সব ‘বিকলাংগ মানুষ বা ফ্রিকদের দেখিয়ে সাধারন মানুষদের কাছ থেকে পয়সা নিত। ফ্রিকদের নিয়ে ঠাট্টা করতে দিত। ওরা ফ্রিকদের সাথে পশুর মত ব্যাবহার করতো। খুব অল্প পয়সা দিত, মারত, ছেঁড়া কাপড়ে পরতে দিত আর গোসল করার অনুমতিও দিত না।

-কি নিষ্ঠুর! সামনের দিকে বসা ডেলাইনা প্রাইস নামের মেয়েটা বলে উঠল।

-হ্যাঁ। ফ্রিক শো খুব নিষ্ঠুর এবং জঘন্য প্রদর্শনী। তাই এটা দেখে রেগে গেছিলাম।

ফ্লায়ারটা ছিড়ে ফেলতে ফেলতে বললেন। ‘ফ্রিক প্রদর্শনী অনেক বছর আগে নিষিদ্ধ করা হয়েছে, কিন্তু প্রায়ই গুজবে শোনা যায় যে এখনও ওরা তৎপর আছে’।

-আপনি কি মনে করেন যে সার্ক দু ফ্রিক আসলেই ফ্রিক শো? আমার জিজ্ঞেস করলাম।

স্যার আবার ফ্লায়ারটা পড়লেন। তারপর মাথা ঝাঁকিয়ে বললেন, ‘মনে হয় না, এটা সম্ভবত একটা বাজে ধরনের চালাকি’। কিছু থেমে আবার বললেন ‘আর যদি সত্যিই হয়… আমি আশা করি আমাদের মাঝে কেউ এটা দেখতে যাওয়ার চিন্তা করবে না।’

-না স্যার, না। আমরা সবাই বেশ তাড়াতাড়ি বলে উঠলাম।

-কারণ ফ্রিক শো খুবই অমানবিক। ওরা আসল সার্কাসের মত হবে বলে ভাব ধরলেও, আসলে শয়তানীর আড্ডা। আর যারা ওখানে যায়, তারাও ওদের মতই খারাপ।

স্টীভ বলে উঠল- ‘ওখানে শুধু প্রচন্ডরকম বিকৃ্ত মানসিকতার মানুষরাই যেতে পারে।’

আর তারপর আমার দিকে তাকিয়ে চোখ টিপে ইশারায় বললঃ ‘আমরা যাচ্ছি!’

চলবে…


This is the beginning of the project that I christen: “Translate the AwesYumm”. If you do not read Bangla, read “Cirque du Freak – A Living Nightmare” in English. Various introductions (yes, many introductions) in Bangla follow.

.

.

.

লেখক পরিচিতিঃ
ড্যারেন শ্যান একজন আইরিশ লেখক। জন্ম ২রা জুলাই ১৯৭২ সালে লন্ডনে। ড্যারেন শ্যান তাঁর ছদ্ম নাম। আসল নাম Darren O’Shaughnessy। তিনি লন্ডনের রোহাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজী এবং সমাজ বিজ্ঞানে ডিগ্রী লাভ করেন।

তিনি ১৪ বছর বয়সে প্রথম টাইপ রাইটার কিনে লেখা শুরু করেন, ১৫ বছর বয়সে টিভি স্ক্রিপট লেখা প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান লাভ করেন এবং ১৭ বছর বয়সে প্রথম নভেল (অপ্রকাশিত) লেখেন। শিশুদের জন্য লেখা তাঁর সবচেয়ে জনপ্রিয় সিরিজ, ‘সাগা অফ ড্যারেন শ্যা্ন’ জানুয়ারী ২০০০ সালে প্রকাশিত হয়।এই সিরিজের সবথেকে জনপ্রিয় ট্রাইলজি ‘দ্যা ভ্যাম্পায়ারস এসিস্ট্যান্ট’। আমার অনুবাদের জন্য নির্বাচিত গল্পটি এই ট্রাইলজির প্রথম বই।

তাঁর লেখা ভ্যাম্পায়ার চরিত্র নিয়ে জাপানিজ শিল্পী তাকাহিরো আরাই সফল ভাবে জাপানিজ কার্টুনের বই, মাংগা, তৈরী করেন (নামঃ সার্ক দু ফ্রিক)। প্রথমে এটা জাপানের জন্য নির্মিত হলেও এখন আমেরিকা, যুক্তরাজ্য সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জনপ্রিয়। ২০১০ সালের মধ্যে তার বই বিশ্বের প্রায় ৩৯টি দেশে ৩১টি ভাষায় প্রকাশিত হয়। তাঁর কিশোর সাহিত্য আমেরিকা, ব্রিটেন, আয়ারল্যান্ড, নেদারল্যান্ড, নরওয়ে এবং বিশ্বের অন্য আরো অনেক দেশেই বেস্ট সেলার।

সার্ক দু ফ্রিকঃ দ্যা ভ্যাম্পায়ারস এসিস্টেন্ট মুভিটি, এই বই থেকেই করা।


আমার কথাঃ

ছোট বেলায় গল্পের বই পড়তে গেলেই অল্প কিছু বইয়ের মাঝে নিজেকে সীমিত রাখতে হত। ঠাকুরমার ঝুলির সব রসদ শেষ হবার পর শুকুমার রায়ের শিশু সাহিত্য সঙ্কলন, রবীন্দ্রনাথ, নজরুলের শিশু সমগ্র শেষ করে দেখি, খুব বেশি হলে হুমায়ুন আহমেদ অথবা জাফর ইকবালের কিছু বই। এর বাইরে বেশীর ভাগই ছিল বড়দের প্রেমের উপন্যাস, অথবা এমন বিষয়-বস্তু নিয়ে লেখা, যাতে কিশোরী-উৎসাহ অতি অল্পেই ধুলিস্যাত হোত। মনে আছে ক্লাশ সিক্স-সেভেনে থাকতে, পড়ার কিছু খুঁজে না পেয়ে বাসার পুরোনো বিসিএস গাইডের রচনা এবং ইতিহাস সেকশনও পড়েছি।

কিছুটা বড় হবার পর আবার যখন ইংরেজী ফ্যান্টাসী গল্প পড়া শুরু করলাম, মনে হল যে আসলেই জিনিষটা ভালো। হ্যা, ক্রনিকল অফ নার্নিয়া এবং হ্যারি পটারের কথা বলছি। ইচ্ছে ছিল সেগুলোর কিছু অনুবাদ করার। বিধি বাম। প্রচুর পড়ার চাপ এবং ইউনিভার্সিটিতে ভর্তির ধান্দায় সমস্ত ইচ্ছা মাঠে মারা পড়ে।

অল্প ক’দিন আগে একগাদা ফ্যান্টাসী ই-বুক হাতে আসে এবং “সার্ক দ্যু ফ্রিক” নামটা ভালো লাগে। গল্প পড়ে দেখি, বাংলায় যেমন বই পড়তে চাইতাম, ঠিক তেমন বই। পড়তে পড়তে নিজেকেই ‘ড্যারেন’ ভাবতে শুরু করেছিলাম। মনে পড়ল ছোটবেলার কথা।

আমার এই অনুবাদ ক্ষুদে গল্প পড়ুয়াদের উপহার দিতে চাই। এই গল্পের প্রোটাগনিস্ট ঠিক ওদের মতনই কিশোর, এবং গল্পটা সহজ এবং অনাড়ম্বর ভাষায় ঠিক ওদের মত করে লেখা।

অনুবাদ শুরু করলাম। পড়ার চাপে খুব দ্রুত না এগোতে পারলেও, পিচ্চি-পাচ্চা পড়ুয়াদের জন্য খুব তাড়াতাড়ি এই বইটি বাংলায় অনুবাদের কাজ শেষ করতে চাই।

.

.

.

একটি জিবন্ত দুঃস্বপ্ন
মুল গল্পঃ ড্যারেন শ্যান

ভুমিকা

মাকড়শাদের প্রতি সবসময়ই আমার একটা প্রবল আকর্ষন ছিল। ছোটবেলায় আমি মাকড়শা সংগ্রহ করতাম। বাগানের পেছন দিকের পুরনো ধুলো জমা ছাউনীর নিচে এই সব আট পেয়ো শিকারীদের ধরার জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা ধরে মাকড়শাদের জাল ঘাটাঘাটি করতাম। কোন একটাকে খুঁজে পেলেই ধরে এনে আমার ঘরে ছেড়ে দিতাম।

এতে আমার মা ভীষন খাপ্পা হয়ে থাকতেন।

সাধারণতঃ মাকড়শারা দু’এক দিনের মধ্যেই পালিয়ে যেত এবং তারপর আর কখনই তাদের দেখা মিলত না। কিন্তু কখনো কখনো দু’একটা বেশী দিনও থেকে যেত। একবার একটা মাকড়শা আমার বিছানার ঠিক উপরে জাল বুনে সেখানে প্রায় এক মাস চুপচাপ বসে ছিল। ঘুমাতে গিয়ে আমি প্রায়ই কল্পনা করতাম মাকড়শাটা ধীরে ধীরে নিচে নেমে আসছে, আমার মুখের মধ্যে ঢুকে যাচ্ছে, গলা দিয়ে পিছলে নেমে পেটের মধ্যে ডিম পাড়ছে। কিছুদিনের মধ্যে ডিম ফুটে বাচ্চা মাকড়শারা বের হয়ে আমাকে জিবন্ত ভেতর থেকেই খেতে শুরু করে দিয়েছে।

ছোট বেলায় আমি ভয় পেতে ভীষন ভালোবাসতাম।

আমার যখন নয় বছর বয়স, তখন আব্বু-আম্মু আমাকে এইটা ছোট্ট ট্যারানটুলা দিয়েছিল। যদিও ওটা খুব বড় অথবা বিষাক্ত ছিলনা, কিন্তু সেটা ছিল আমার সারা জিবনে পাওয়া উপহারের মাঝে সেরা। দিনের মধ্যে যতক্ষন জেগে থাকতাম, তার প্রায় পুরোটা সময়ই আমি ওই মাকড়শার সাথে খেলতাম। ছোট পোকা, মাছি এবং তেলাপোকা ধরে এনে খেতে দিতাম-ওকে অতিরিক্ত প্রশ্রয় দিতাম।

তারপর এক দিন। আমি একটা মহা বোকার মত কাজ করলাম। কার্টুনে দেখেছিলাম যে একজনকে ভ্যাকুয়াম ক্লিনারের ভিতরে টেনে নেয়া হয়েছে, কিন্তু তাতে ঐ চরিত্রের কোন ক্ষতি হয়নি। শুধু ভ্যাকুয়ামের ব্যাগের মধ্য থেকে কোন রকমে বের হওয়ার পর, ধুলা-ময়লায় রেগেমেগে তার এমন অবস্থা হয়েছিল যে দেখে আমি খুব মজা পেয়েছিলাম।

এতটাই মজা পেলাম যে আমি আমার ট্যারান্টুলার সঙ্গে একই কাজ করলাম।

বলাই বাহুল্য যে আমার ক্ষেত্রে ব্যাপারটা খুব একটা কার্টুনের মত হয়নি। মাকড়শাটা ছিড়ে টুকরা টুকরা হয়েছিল। অনেক কেঁদেছিলাম, কিন্তু সবই বৃথা। আমার পোষা মাকড়শাটা আমারই ভুলের জন্য প্রান হারাল আর আমার কিছুই করার ছিল না!

আব্বু-আম্মু আমার কৃতকর্মে রেগে বাড়ী মাথায় তুলেছিল কারন ওটা বেশ দামি ছিল। আমাকে দায়িত্বজ্ঞানহীন বলেও বকা দিয়েছিল এবং তারপর থেকে ওরা আমাকে পোষার জন্য কিচ্ছু কিনে দেয় নি। এমনকি সাধারণ গোছের মাকড়শাও না!

আমি দুই কারণে এই গল্পটা শেষ থেকে বলা শুরু করেছি। প্রথম কারনটা পড়তে পড়তেই বুঝতে পারবে। এবং অন্য কারনটা হল:

এটা একটি সত্যি গল্প।

তোমরা আমাকে বিশ্বাস করবে, এই আশা আমি করছি না-আমি নিজেও বিশ্বাস করতাম না যদি না এই গল্পটা আমার নিজের জীবনে ঘটত। এই বইয়ে যা লিখেছি তা সব ঘটেছে-একদম যেভাবে লিখেছি, ঠিক তেমন করেই।

বাস্তব জীবন এমন- বোকার মত কাজ করলে, সাধারনতঃ তার মুল্য দিতে হয়। গল্প অথবা বইয়ের নায়কেরা ইচ্ছেমন যতবার খুশী ভুল করতে পারে। কি করল সেটা কোন বিষয়ই না, কারন শেষে গিয়ে সব কিছু ঠিক হয়ে যায়। নায়করা খারাপ লোকদেরকে হারাবেই, সবকিছু ঠিক করে দেবে আর শেষটা হবে জোস।

বাস্তব জীবনে ভ্যাকুয়াম ক্লিনার দিয়ে মাকড়শা টেনে নিলে তা মারা যায়। ব্যস্ত রাস্তা না দেখে পার হতে গেলে, গাড়ি ধাক্কা দেয়।গাছ থেকে পড়লে হাড়গোড় ভাংগে।

বাস্তবতা জঘন্য এবং নিষ্ঠুর। নায়ক অথবা সুন্দর সমাপ্তি কিম্বা সব কিছু কেমন হওয়া উচিত তা নিয়ে চিন্তা করে না। বাস্তব জীবনে খারাপ জিনিস ঘটে, মানুষ মারা যায়। লড়াইয়ে হার হয়। মন্দ লোকেরা প্রায়শই জিতে যায়।

আমি গল্পটা শুরুর আগে এই বিষয়টা পরিস্কার করতে চেয়েছিলাম।

আর একটি বিষয়ঃ আমার আসল নাম ড্যাররেন শ্যান নয়। এই গল্পে সবকিছু সত্যি শুধু মাত্র নাম ছাড়া, আমাকে ইচ্ছে করেই তাদের নাম পরিবর্তন করতে হয়েছে কারন…ঠিক আছে, তুমি গল্পের শেষে গেলে নিজেই বুঝতে পারবে।

আমি একটাও আসল নাম ব্যাবহার করিনি, না আমার নিজের, না আমার বোনের, না আমার বন্ধুদের না, আমার টিচারদের। কারোর ই না। এমনকি আমি আমার নিজের শহরের বা দেশের নামও বলব না। বলার সহস আমার নেই।

যা ই হোক, ভূমিকার জন্য এ টুকুই যথেষ্ট। যদি তোমরা তৈরি থাকো, চলো শুরু করা যাক।যদি এটা বানানো গল্প হত, তাহলে এর শুরুটা হতো এক ঝড়ের রাতে, পেচার ডাক এবং খাটের নীচে ভয় জাগানিয়া ভুতুড়ে শব্দ নিয়ে।কিন্তু এটা একটি আসল গল্প, তাই আসল শুরুটা দিয়েই শুরু করতে হবে।

গল্পের শুরুটা টয়লেটে।

চলবে…


Did it appear as though I was going to write a review of a very nice Bed and Breakfast place? Such was not my motive. I would like to introduce to you the all new “Beauty and the Beast” (2009) directed by David Lister, and casting Estella Warren (Belle), Rhett Giles (sexy count Rudolph), Victor Parascos (Beast… for the last 1 minute of the movie) and Vanessa Gray (Helen the witch). I would also like to persuade you to NOT see the movie. Why? Well, here are the reasons:

  1. I am yet to hear/read from a single source (literary of otherwise) that  medieval women/girls wear mini dresses (yes, coming exactly to half-length of her thighs, then revealing some awesome cleavage *blushes*) with a leather, form-fitting vest and extremely well made leather calf-length boots. Well, somebody tried to imitate the tomb-raider. The color combination of the (only) dress on Belle was nice though, but the authors could have tried brown boots for a fashion boost.
  2. Beats me why all the other girls were wearing full length dresses with frills AND head scarves while Belle was clearly not appropriately dressed.
  3. When Belle goes into the forest for the first time to collect herbs… she struggles for her life to imprint on the viewers the notion of personal interest in the particular occupation. Reminded me of scenes preceding “the action” in porn movies… time killer to get in the action. Should I mention that action starts pretty soon?
  4. The horses move awfully slow…. How did Belle and the beast EVER manage to get away from the executioners?
  5. Blood purges EVERYWHERE!!! I mean EVERYWHERE!!! It reminded me a little of the effects used in the black and white Dracula movie. Especially the beheading of Helen.
  6. Helen’s character was cliché!
  7. For no reason, once the COUNT has been killed, beast turns back into the Prince he really is. From common fairytales, Ii would appear that beast would turn human once the witch was killed. From the storyline, he should turn back once the Troll has been killed. But NO!!! He turns into a Princely looking (very-average-Joe-like) person once count Rudolph is killed.
  8. Count Rudolph maintains the same expression throughout the whole movie. Reminded me of the constant expression of Bella in Twilight. Not exciting.
  9. It has a rating of exactly 2.4/10 in IMDB site as of the moment of writing this review. Enuf sed?

Two pluses in the whole movie:

1. Helen screams “How dare you?” from her bodyless head (after Beast had chopped it off). Then immediately falls silent.

2. Rhett Giles looks too sexy to be true… :P… and the stubbles looked vey scratchable 😛 *scratches*

This movie has all the elements of a film produced for the low income population of Bangladesh. The movies we ridicule while in the company of “educated” family and friends. You could just as well watch one of those. Chances are, those will be a little more funny. Hence a little more bang for the buck.


My mind was itching for a good while for writing a BASHING critique against the Twilight trilogy. Every time I tried to write one, my conscience reminded that there is an array of Twilight critics concocting twilight critiques, and ending up as just another fish in the sea was not an alluring option. But while cleaning my room twenty minutes ago, I stumbled across THIS… and all restrictions took flight.

July 2008

I was checking out of a Chapters outlet when the above bookmark caught my attention. God, this bookmark looked so… smart! The white queen on the face side and the red pawn at a catch-me-if-you can distance on a classic chessboard and all fading to black on the sides looked nothing but appealing.

Hence while the cash girl scanned the barcodes, I flipped the bookmark to the other side. It read: “When you loved the one who was killing you, it left you no options. How could you run, how could you fight, when doing so would hurt the beloved one? If your life was all you had to give, how could you not give it?” I automatically realized that I HAD no choice but to read the novel behind this lovely quote.

Then and there I made myself promise that I would read this book no matter what. I needed to know what it was about. Well, within a few weeks, the internet was buzzing with news about a movie named Twilight, supposedly made from a bestselling novel of the same name. No wonder it also mentioned that “girls” were crazy etc etc etc about this movie. I went on Wikipedia to check out all about the book, it seemed to be ok. MOREOVER, Breaking Dawn was a sequel to it! Maybe I’ll read the book. Came august, and I realized I was not affluent enough to buy any book of this trilogy.

Well, let’s not get into HOW I acquired these books. The fact is, I acquired a copy each of Twilight, New Moon and Breaking Dawn and over a week and a half of winter term 2009 not attending any classes, ended the trilogy. The simplest and easiest way to cover my response:

  1. Twilight: Sucks. Big Time. BAD grammer. NO literary value.
  2. New Moon: Erm….? Slightly eww.
  3. Breaking Dawn: Will read if I have nothing else to do

Yet, I noted that girls all over the world were freaking screaming whenever “Twilight” was mentioned. I thought that perhaps something was wrong with me. Perhaps I had overlooked something. Hence I invested another week in reading the trilogy over again. No improvement.

Then came the movie. “OMG. It was so bad.” I started to wonder whether the economic depression had anything to do with the quality of BOTH the book and the movie. Another thought came into my mind: Maybe the author and director of the movie are on a pact of making the movie as bad as the book.

Well, now that I am not so bedazzled by Twilight and the beautiful chessboard, I notice that the pawn and the Queen are not on the same colored squares. That, technically, is not just YET checkmate. Yes the pawn can move and then be eaten by the white queen, but Bella being signified by the red pawn and Edward by the white Queen now had a degustatory effect on my voracious mind.

CURRENT THOUGHTS: Will not watch New Moon (though I have heard that it is full of torsos). Might watch Breaking Dawn if the reviews are any good.

Well, if you liked this, you will LOVE Guinew Moon


When I was about 6 years old, I heard the name “Helen of troy” for the first time. My young brain understood that Helen was a name, but I was utterly bewildered at the presence of “of Troy” in a name. That was particularly peculiar to me. My rather inquisitive mind drove me to ask my aunt what “of Troy” meant. To clarify the point, my aunt told me the first version I heard of the tale of “Helen”… of troy”: embodiment of the pinnacle of human beauty of all times.

“Helen was a woman of unmatched beauty of her time. She was married to a king, but was abducted by a Trojan prince. Helen’s husband managed to get her back after a war but the Trojans not accepting defeat, schemed. The walls of the city in which the king lived were well forted and the Trojans could not get in. The Trojans gifted a big wooden horse as big as two houses put together to Helen’s country as a token of friendship. The king accepted the gift. At night, when all people of Helen’s city were sleeping, the Trojan soldiers hiding inside the wooden horse came out and pillaged the city, and reclaimed Helen as their own. You see, in the end, Helen was won by Troy.”

That, is the shortest version of the legendary beauty’s life I had ever heard. I have seen a few movies made in her name and perhaps have read her story in a slightly greater depth in children’s books. But none has moved me to the extent has “The memoirs of Helen of Troy: A novel” by Amanda Elyot (or Leslie Carroll, whatever name you want to call her by).

From the very first page to the very last, it shows the continual metamorphosis of a legendary woman. Carroll tells the whole life of Helen of Troy in a breathtaking fashion. In Carroll’s book, Helen is not the toy of various mighty princes who, at their whim of “carnal desire” can whisk a woman’s life to whatever direction they desire. She is the portrayal of an educated woman, and in many aspects, she resembles a modern, college-educated woman. Indeed Carroll addresses this issue.

Starting from Stockholm syndrome to postpartum depression and regal politics, “The memoirs of Helen of Troy” is a rich narration of a complex life, partly verity, partly fiction.

I believe this book is a must read for every lover of historical fiction. This book effectively embodies the current state of feminist revolution. It enrobes both feminism and post-feminism, and has certainly started the cogs in my brain to look at my own life through a new window. I suggest that all women who have the opportunity read the book. It is an experience.